অক্টোবর ২১, ২০২১

লক্ষ্মীপুর নিউজ

দিন বদলের প্রত্যয়ে

দিঘলীতে চেয়ারম্যান প্রার্থী জামাল উদ্দিন বাবুল আলোচনার শীর্ষে…

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ  লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার দিঘলী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান প্রার্থী ,ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক এবং রাজপথের লড়াকু সৈনিক জামাল উদ্দিন বাবুল। তিনি চন্দ্রগঞ্জ থানাধীণ ১৩ নং দিঘলী ইউনিয়নের দূর্গাপুর গ্রামের ফরিদ উদ্দিন মাষ্টার বাড়ীর একটি মুসলিম সম্রান্ত পরিবারে ১৯৭৭ সালের ১৫ অক্টোবর জন্ম গ্রহন করেন। তার পিতার নাম :- মো : সাখায়েত উল্লাহ,মাতা- আঙ্কুরের নেসা। ছোট কাল থেকে মানুষের প্রতি শ্রদ্ধা ভক্তির কমতি ছিলনা। নামাজ কালাম, আদব কায়দায় পরিপাটি ছিল। ছাত্রজীবনে রাজনৈতিক মনোভাব ছিলো এবং বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা ভক্তির ফলা ফল সরুপ ১৯৯১- ৯৩ সনে দিঘলী বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্র লীগের সভাপতি,১৯৯৪-৯৫ সনে অত্র ইউনিয়নের ৪,৫,৬ নং ওয়ার্ডের ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক,১৯৯৬-৯৭ সনে জনতা ডিগ্রী কলেজ ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি,১৯৯৮-২০০৪ সনে ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক,২০১৬ সনে বাংলাদেশ আওয়ামী, লক্ষ্মীপুর জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক, এবং বর্তমানে সৎ এবং নিষ্ঠার সাথে বাংলাদেশ আওয়মীলীগের ১৩ নং দিঘলী ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করে আসছে। তার দির্ঘ্য রাজনৈতিক জীবনে মানুষের ভালবাসা ও আন্তরিকতার ফলাফলে, আসছে আগামী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে, নৌকা প্রতীকের একমাত্র প্রার্থী হিসেবে জনগন তাকে দেখতে চায়। এবং তাদের বিশ্বাস জামাল উদ্দিন বাবুল অনেকের মধ্যে একমাত্র যোগ্যতার দাবীদার। সে দলের যে কোন মিছিল,মিটিং,সভা,সেমিনার,কাউন্সিল এবং দলের মানুষের পাশাপাশি সংগঠকদের দলের প্রতি অনুপ্রেরণা যোগীয়েছে। এক কথায় বলতে গেলে তৃনমূলে ১৩ নং দিঘলী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও নৌকার প্রার্থী হিসেবে জামাল উদ্দিন বাবুল এগিয়ে রয়েছে। প্রশ্নের জবাবে নৌকা প্রতীক প্রত্যাশী এবং ১৩নং ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক জামাল উদ্দিন বাবুল বলেন, আমার জীবন যৌবন অদ্যবধী বাংলাদেশ আওয়ামী রাজনৈতির সাথে জড়িত থেকে বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে বুকে লালন করে, বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়নের ধারাবাহিকতার দৃশ্যমান চিত্র, গ্রামগঞ্জে পাড়ায় মহল্লায় পৌঁছে দিয়ে। বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সভানেত্রী উন্নয়নের রুপকার এবং আমার প্রাণ প্রিয় সংগঠন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সকল কর্মকান্ডের একততা পোষন করে, রাজনৈতিক প্রচার প্রচারণা নিষ্ঠার সাথে করে আসছি। এবং দলীয় নেতা কর্মীর সুখে দুঃখে পাশে থেকে দলীয় স্বার্থ ছাড়া ব্যক্তি কেন্দ্রীক কোন সুযোগ সুবিধা ভোগ করিনাই। ওই হিসেবে আমি আশাবাদী আমার কর্মকান্ডের প্রতি দলের যথেষ্ঠ শ্রদ্ধাভক্তি আছে। সেই সুবাধে আমাকে দলীয় নমিনেশন দেবে ইনশাল্লাহ। দীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনে জেলজুলুম হামলা মামলাসহ ছোট ভাই কবির হোসনকে ২০১৪ সালে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের সময় সন্ত্রাসীরা হত্যা করে এবং এর আগে বিগত জোট সরকারের আমলে পুরো পরিবার ঘরবাড়ী ছাড়া মানবেতর জীবন যাপন করতে হয়েছে। সকল দিক বিবেচনা করে, আমার ইউনিয়ন,থানা, জেলা এবং সকল পর্যায়ের নেতা কর্মীরা আমাকে যোগ্য মনে করে। নৌকা প্রতীকে সমর্থন দিয়ে আগামীদিন, দিঘলী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে নির্বাচিত করে একটি মডেল ইউনিয়ন হিসেবে গড়ে তোলার সুযোগ তৈরী করে দেবেন। দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশী এই নেতা সামাজিক কর্মকান্ডেও ব্যপক ভূমিকা রেখেছেন। যেমন,সামাজিক কিছু পরিচিতি দিঘলী বাজার কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের সাধারণ সম্পাদক, দিঘলী কেন্দ্রীয় ঈদগাঁ কমিটির সভাপতি, দিঘলী ব্লাড ব্যাংক ও দিঘলী জয় বাংলা ক্লাবের উপদেষ্টা। এছাড়া সে এলাকা এবং এলাকার বাহিরেও ব্যপক জনপ্রিয়তা অর্জন করেছে। বলা চলে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের ও দিঘলী ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের নিরলস ভুমিকার প্রতীক হিসেবে জামাল উদ্দিন বাবুলের বিকল্প নেই।
জানাযায়, দিঘলী ইউনিয়ন ইউনিক ফোরামের উদ্যোগতা হিসাবে করোনা রুগীদের অক্সিজেন সেবা ও সাহার্য্য সহযোগীতা মুলক মানুষের মাঝে কাজ করেছে।আগামিতে এ ধরনের সামাজিক কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে ইনশাল্লাহ।

Please follow and like us:
error20
Tweet 20
fb-share-icon20