লক্ষ্মীপুরে দেড় বছরের শিশুকে বিষাক্ত ইনজেকশন পুশ

নিজস্ব প্রতিবেদকঃপারিবারিক বিরোধের জের ধরে দেড় বছর বয়সী এক শিশুর শরীরে বিষাক্ত ইনজেকশন পুশের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় বুধবার (২৭ মে) দুপুরে শিশু হাবিবের দাদি রহিমা বেগম প্রতিবেশী খুকিসহ অজ্ঞাত ৩ জনের বিরুদ্ধে সদর থানায় সাধারণ ডায়রি (জিডি) করেছেন।অভিযুক্ত খুকি সদর উপজেলার পার্বতীনগর গ্রামের আবুল কাশেমের স্ত্রী। আক্রান্ত শিশু হাবিব একই গ্রামের মো. নুর নবীর ছেলে।

এছাড়া খুকির বিরুদ্ধে রহিমার অপর দুই নাতি লাবিব ও রহমানকে হত্যার হুমকি দেয়ার অভিযোগও জিডিতে উল্লেখ করা হয়।

থানা পুলিশ জানায়, চরপার্বতীনগর গ্রামের রহিমা বেগমদের সঙ্গে প্রতিবেশী খুকিদের পারিবারিক বিরোধ চলে আসছে। এর জের ধরে ১১ মে বিকেলে খুকি কৌশলে রহিমার নাতি হাবিবকে তার ঘরে নিয়ে যান। একপর্যায়ে খুকি শিশুটির শরীরে ৩টি বিষাক্ত ইনজেকশন পুশ করেন। এতে বিষক্রিয়া হয়ে শিশুটি অসুস্থ হয়ে পড়ে।

পরে তাকে লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। অবস্থার অবনতি হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক শিশুটিকে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে স্থানান্তর করেন। সেখান থেকে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। বর্তমানে শিশুটি ঢাকা মেডিকেল কলেজের আইসিইউতে চিকিৎসাধীন।

চিকিৎসকদের বরাত দিয়ে বলা হচ্ছে, দিনদিন শিশুটির অবস্থার অবনতি হচ্ছে।

অভিযোগ রয়েছে, প্রায় ১৩ বছর আগে খুকি তার ভাসুরের ছেলে তারেক হোসেনকে হত্যা করে চালের ড্রামে ভরে রাখেন। পরে লোক দিয়ে তারেকের লাশ পুকুরে ফেলে দেন। খুকির পরকীয়া প্রেমের ঘটনা দেখে ফেলায় ঘটনাটি ঘটিয়েছিলেন তিনি। স্থানীয়ভাবে এই অপরাধে বেশ দুর্নাম রয়েছে তার।

এ ব্যাপারে লক্ষ্মীপুর সদর মডেল থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) কামরুজ্জামান বলেন, অভিযোগ পেয়েই ঘটনাস্থলে যাওয়া হয়েছে। কিন্তু শিশুটির মা তার সঙ্গে হাসপাতালে রয়েছে। এজন্য কোনো আলামত পাওয়া যায়নি। শিশুর মায়ের কাছে ওই ইনজেকশনগুলোর সিরিঞ্জ আছে বলে শুনেছি। তিনি লক্ষ্মীপুরে ফিরলে সেগুলো সংগ্রহ করে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।